জাতীয় প্রেসক্লাবে আবুল খায়ের গ্রুপের বিরুদ্ধে ৫০০ বিঘা জমি দখলের অভিযোগ সংবাদ সন্মেলন।

0

মোঃ সুজন বেপারি, মুন্সীগঞ্জঃ-  মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুরে আবুল খায়ের গ্রুপ স্থানীয় বাসিন্দাদের পাঁচশ বিঘা জমি দখল করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তাদের মালিকাধীন শাহ সিমেন্ট ফ্যাক্টরির পাশে এ সব জমি জোরপূর্বক দখল করে রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী মালিকরা। এমনকি নিজেদের জমিতে গেলে শাহ সিমেন্টের পোষা সন্ত্রাসীদের হাতে মারধরের শিকার হতে হয়েছে বলে ভুক্তভোগীদের অভিযোগ।

রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করেন জমি হারানো মালিকরা। এর আগে একটি সংবাদ সম্মেলনও করেন তারা।

জমি হারানো মালিকদের মধ্যে আব্দুল বাতেন বলেন, ‘শাহ সিমেন্টের আবুল খায়ের গ্রুপ নিরীহ মানুষজনের জমি দখল করে নিয়েছে। জেলা প্রশাসনকে জানানোর পরও গত তিন বছরে বিষয়টির কোনো সুরাহা হয়নি। আমরা এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ চাই। তিনি চাইলে আমাদের বাঁচাতে পারেন।’

এর আগে, সংবাদ সম্মেলনে জমির মালিক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমরা মুন্সীগঞ্জের সদর উপজেলা পঞ্চসার ইউনিয়ন মুক্তারপুরের অধিবাসী। আজ প্রায় তিন বছর যাবত আমাদের ৫০০ বিঘা জমি আবুল খায়ের গ্রুপের সিমেন্ট কোম্পানি জোরপূর্বক দখল করে রেখেছেন। আমরা আমাদের জমিতে যেতে চাইলে তাদের কেনা গুণ্ডাবাহিনী দিয়ে হত্যা-গুম করার হুমকি দিয়ে আসছে। জীবনের ভয়ে আমরা এখন আর জমিতে যেতে পারছি না।’

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, শাহ সিমেন্ট কোম্পানির মালিক কর্তৃপক্ষ আমাদের ফসলি জমি ড্রেজার দিয়ে বালু ভরাট করে জোরপূর্বক ও অবৈধভাবে দখল করে নিয়ে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণ করছে। আমাদের প্রতি নির্যাতন-জুলুম চালাচ্ছে। আমরা জেলা প্রশাসনকে বিষয়টি একাধিকবার জানিয়েছি। কিন্তু ভূমিদস্যু শাহ সিমেন্ট কর্তৃপক্ষ প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করে নীরব ভূমিকা পালন করছে। আমরা আমাদের জমি বঞ্চিত প্রায় দুইশ পরিবারের সদস্যরা এখানে এসেছি। দুইশ পরিবারের প্রায় আড়াই হাজার মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছি।’

             মুন্সিগঞ্জনিউজ২৪.নেট

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগীদের পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ তিনি যেন আমাদের জমি বুঝিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করেন। পাশাপাশি আবুল খায়ের গ্রুপের শাহ সিমেন্টের বিরুদ্ধে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে জানতে আবুল খায়ের গ্রুপের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী ফারুক আলম বলেন, ‘এলাকাবাসীর কেউ কেউ কোম্পানির সুনাম নষ্ট করার জন্য এসব অভিযোগ তুলেছে। আমাদের বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ আনা হয়েছে তার কোনোটিই সত্য নয়।’

 

Print Friendly, PDF & Email

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.