টুপি, রিস্টব্যান্ড আর কালো পোশাক—সব মিলিয়ে আমি

0
শুরু থেকেই ছুটির দিনের সঙ্গে ছিলেন আইয়ুব বাচ্চু। কখনো নিজে লিখেছেন, কখনো তাঁকে নিয়েই প্রকাশ হয়েছে বিশেষ রচনা। তেমনি দুটি লেখা এখানে পুনঃপ্রকাশ করা হলো। ২০০০ সালের ১৫ জানুয়ারি নিজেই লিখেছিলেন তাঁর জীবনযাপনের কথা। পরের বছর ২০০১ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবসের বিশেষ সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর একটি চিঠি।এ দুটি লেখা এখানে ্পআবার প্রকাশিত হলো।  টুপি, রিস্টব্যান্ড আর কালো পোশাক—সব মিলিয়ে আমি

গান ছাড়াও আমাকে চেনার একমাত্র উপায় হচ্ছে আমার পোশাক। আর পোশাকের যে জিনিসটা প্রথমে সবার চোখে পড়ে, তা হচ্ছে হ্যাট বা টুপি। আমার সংগ্রহে প্রচুর হ্যাট আছে। কনসার্টে সাধারণত আমি ক্যাঙ্গল বা ফেইবিলিসের হ্যাট ব্যবহার করি। আর সাধারণভাবে সব সময় ফিশির হ্যাট পরি। তবে আমার সংগ্রহে কাউয়ে হ্যাটও আছে, যদিও আমি কখনো তা পরি না। আগে কানে দুল পরতাম। তবে এখন আর পরি না। দুলটা এখন আর আমার কাছে ততটা আরামপ্রদ মনে হয় না। তবে আমার গলায় পরার জন্য অনেক নেকলেস বা চেন আছে। যেহেতু ছেলেদের জন্য গলায় সোনা পরা উচিত নয়। তাই আমার সব চেনই অক্সিডাইজড মেটালের তৈরি। আর গলায় চেন পরার মূল কারণ, ভালো লাগে। এসবের সঙ্গে আমি সব সময় পরি টি-শার্ট। এই জিনিসটা বছরের ১২ মাস আমার গায়ে থাকে। টি-শার্টের বেলায় আগে বিভিন্ন ব্র্যান্ড বাছতাম। এখন আমাদের এখানে এক্সটেসি, টিমল প্রভৃতি দোকান হয়ে যাওয়ায় সেখান থেকেই টি-শার্ট কিনি। ভি গলা এবং গোল গলা উভয় ধরনের টি-শার্টই আমার পছন্দ। তবে তা অবশ্যই শরীরের সঙ্গে ফিট থাকতে হবে। তবে শীতকাল হলে টি-শার্টের ওপর ছাপিয়ে দিই মোটা ধরনের কোনো জ্যাকেট।

Print Friendly, PDF & Email

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.