মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারীরা শিশু রাসেলকে হত্যা করে , মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

শহীদ শেখ রাসেলের ৫৫ তম শুভ জন্মদিন উপলক্ষে

0

এস এম নাসির উদ্দিন ## এদেশের মানুষের জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছিল অপরিসীম ভালবাসা, বন্ধুদের প্রতি ছোট রাসেলর ও ছিল তেমন ভালবাসা। সেই ছোট বয়সে রাসেল স্কুলে বন্ধুদের সাথে টিফিন ভাগ করে খেত। যখন টুঙ্গিপাড়া বেড়াতে যেত বন্ধুদের জন্য ঢাকা থেকে উপহার নিয়ে যেত। নিস্পাপ, নম্র ও মায়াবী চেহেরার শেখ রাসেলকে আমি চিনি ১৯৭০ সাল থেকে যখন আমি ছাত্র রাজনীতির সাংগঠনিক কাজে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বাড়িতে যেতাম। প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি শেখ রাসেলের জন্ম বার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে রাসেলকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করে এসব কথা বলেন।


প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বলেন , যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল ও স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি, তারাই সপরিবারে জাতির জনকে হত্যা করেছিল। খুনিরা ভেবেছিল বঙ্গবন্ধু পরিবারের কোন সদস্য জীবিত থাকলে মুক্তি যুদ্ধের চেতনা, স্বাধীনতার মূল্যবোধ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে উঠবে। এ কারণেই ইতিহাসের ঘৃণ্যতম খুনিরা রাসেলকে হত্যা করে।
প্রতিমন্ত্রী আজ ১৯ অক্টোবর শনিবার রাজধানীর বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শেখ রাসেলের ৫৫ তম জন্ম বার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ‘শেখ রাসেল আমাদের ভালোবাসা’ আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী ইন্দিরা বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িত সকল পলাতক দন্ডপ্রাপ্ত খুনিদের দেশে ফিরিয়ে এনে রায় কার্যকর করার দাবী জানান।
বাংলাদেশ শিশু একাডেমির আয়োজনে এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান লাকী ইনাম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতর বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য লুতফুন নেছা খান, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বদরুন নেসা ও জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক কাজল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির মহাপরিচালক জ্যোতি লাল কুরী।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কামরুন নাহার বলেন, শেখ রাসেলের মত শিশুদের হত্যা ও নির্যাতন মানুষের মনে গভীর ক্ষত সৃষ্টি করে যা উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে বাধাগ্রস্ত করছে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় দেশ থেকে শিশু নির্যাতন সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করতে কাজ করছে।
আলোচনা পর্ব শেষে প্রতিমন্ত্রী শেখ রাসেলের জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী শিশুদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন ও শিশুদের পরিবেশনায় মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করে।

Print Friendly, PDF & Email

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.