মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় এক নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা !! থানায় অভিযোগ  

0

 

  নিজস্ব প্রতিবেদক (মুন্সীগঞ্জ নিউজ ২৪ ডট নেট)  ঃ   মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার বালুয়াকান্দি ইউনিয়নের বড় রায়পাড়া গ্রামে গত বৃহস্পতিবার) রাতে দুই সন্তানের জননীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় বড় রায়পাড়া গ্রামের মৃত সোনা মিয়ার ছেলে বাবু মিয়ার (৩৮) বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় ওই নারী শুক্রবার দুপুরে গজারিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
ভুক্তভোগী ওই নারী জানান, তার বাবার বাড়ী বালুয়াকান্দি ইউনিয়নের বড় রায়পাড়া গ্রামে তিনি স্বামী নিয়ে বালুয়াকান্দি শান্তিনগর বসবাস করেন। গত ৬ জুলাই মাদক মামলায় তার স্বামী পুলিশের কাছে আটক হয়। স্বামীকে জামিন করার উদ্দেশ্যে গতকাল ( বৃহস্পতিবার) তিনি মুন্সীগঞ্জ কোর্টে যান। মুন্সীগঞ্জ আদালতে গিয়ে তার পরিচয় হয় সম্পর্কে মামা শ্বশুর বড় রায়পাড়া গ্রামের মৃত সোনা মিয়ার ছেলে বাবু মিয়ার সাথে। বাবু মিয়া তাকে মামলায় সহায়তা করার আশ্বাস দেন এবং এক হাজার টাকা দিয়ে সহায়তা করেন। আদালতের কার্যক্রম শেষ করে আইনজীবির সাথে কথা বলে বাড়ি ফিরতে ফিরতে তাদের রাত হয়ে যায়। রাত হয়ে যাওয়ায় বাবু মিয়া তাকে বাড়ীতে পৌঁছে দেন রাত এগারোটা পর্যন্ত বাবু মিয়া তার বাড়ীতে অবস্থান করেন। এদিকে তার দুই সন্তান তার মায়ের বাড়ি বড় রায়পাড়া গ্রামে অবস্থান করছিল ,তাদের কান্নাকাটি খবর পেয়ে তিনি বড় রায়পাড়া গ্রামে যেতে চাইলে বাবু মিয়া তাকে সেখানে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলেন। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় বড় রায়পাড়া যাওয়ার পথে রায়পাড়া ইতালি বাড়ী কালভার্ট এলাকায় আসলে জরুরী কথা আছে বলে তাকে অটোরিকশা থেকে নামতে বলে। এ সময় তাকে জোরপূর্বক কালভার্ট সংলগ্ন কাশবনে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে পরে তার আত্মচিৎকারে স্থানীয় লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে। বিষয়টি স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানিয়ে শুক্রবার দুপুরে তিনি গজারিয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে।
স্থানীয় বাসিন্দা মহিউদ্দিন আহমেদ ও শিপন মিয়া জানান, গতকাল রাতে ওই নারীর আত্মচিৎকার শুনে তারা ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং ওই নারীকে উদ্ধার করেন। এ সময় উত্তেজিত জনতা বাবু মিয়াকে গণধোলাই দিয়ে ছেড়ে দেয়।
স্থানীয় ইউপি সদস্য মোঃ বিল্লাল হোসেন জানান, শুক্রবার ভোরে ভুক্তভোগী ওই নারী তার বাড়িতে এসে ঘটনাটি তাকে জানান। বিষয়টি তিনি থানা পুলিশ ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে জানিয়েছেন।
এদিকে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে অভিযুক্ত বাবু মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি মিথ্যা বলে দাবি করেন। তিনি বলেন, ওই নারীর পুরো পরিবার মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত তারা কৌশলে তাকে ঝামেলায় ফেলে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে।
বিষয়টি সম্পর্কে জানতে গজারিয়া থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ মোঃ ইকবাল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে। ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Print Friendly, PDF & Email

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.